নভেম্বর ২৬, ২০২০

জগন্নাথপুর ছাত্রলীগের পাল্টাপাল্টি কমিটির মধ্য দিয়ে গ্রুপিং রাজনীতি এখন তুঙ্গে

জগন্নাথ পুর থেকে সুহেল আহমদ : জগন্নাথপুরে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপ ছাত্রলীগের নতুন কমিটির সভাপতি/ সম্পাদক দাবী করে পৃথক পৃথকভাবে শনিবার পৌরশহরে আনন্দ মিছিল করেছে। উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দাবিদার সাফরোজ ইসলাম এবং রোমেন আহমদ নেতৃত্বে পৌরশহরে দুপুরে আনন্দ মিছিল বের হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে স্থানীয় পৌর পয়েন্টে এসে শেষ হয়। এতে অংশ নেন পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা মিজানুর রশিদ ভূইয়া, পৌর আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক ইকবাল হোসেন ভূইয়া, জেলা পরিষদের সদস্য মাহতাবুল হাসান সমুজ, ছাত্রলীগ নেতা সায়মন হোসেন, নাসির আহমদ, আজমল হোসেন মিঠু, আবু হেনা রনি, আতিক হাসান, হিবলু তালুকদার, তোহা চৌধুরী, ছুফি মিয়া, ছায়াদ আহমদ ভূইয়া, রাসেল আহমদ, আমির খান সাব্বির, ইসলাম উদ্দিন জসিম, মিনার চৌধুরী, জাবের তালুকদার,মিছবাহ আহমদ, খলিল কামালী, সৈয়দ মিজান, মুক্তার আহমদ, জিন্নাহ আহমদ, আদিল, নাজিম, সুজেল,আফজল, তাহা,তোফায়েল প্রমুখ। এদিকে বিকেল ছাত্রলীগের অপর একটি অংশ ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক দাবী করে যথাক্রমে শাহ শাহেদ ও মুরাদ আহমদের নেতৃত্ব আরেকটি আনন্দ মিছিল করেছে।

জগন্নাথপুর উপজেলা ছাত্রলীগের নবগঠিত কমিটি সভাপতি দাবী করে রোমেন আহমদ আমাদের প্রতিনিধি কে বলেন, গত ১০ মার্চ সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ফজলে রাব্বী স্মরণ ও সাধারন সম্পাদক রফিক আহমদ চৌধুরী সাফরোজ ইসলাম কে  সভাপতি ও আমাকে কে সাধারন সম্পাদক করে উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটির অনুমোদন করেছেন। আমরা শনিবার অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী স্থানীয় সংসদ সদস্য এম,এ মান্নান সঙ্গে দেখা করে মন্ত্রী মহোদয়ের দোয়া কামনা করে পৌরশহরে উপজেলা ছাত্রলীগের স্বর্তস্ফুত অংশ গ্রহনে আনন্দ মিছিল করেছি।
অপর দিকে মুরাদ আহমদ জানান, জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক রফিক আহমদ চৌধুরী শাহ শাহেদ আহমদ কে সভাপতি ও আমাকে সাধারন সম্পাদক করে উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি অনুমোদন দিয়েছেন। আমাদের প্রতিনিধি উনাদের উভয়ের কাছে  অনুমোদনের কপি দেখতে  চাইলে উভয়েই পরে দেখাবেন বলে জানান।
এব্যাপারে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক রফিক আহমদ চৌধুরীর সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিফ করেননি।
তবে জগন্নাথপুর উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটির বিষয়ে সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ফজলে রাব্বী স্মরনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি এখন ছাত্রলীগের কোন দায়িত্ব নেই, সাবেক হয়ে গেছি, সুতরাং ছাত্রলীগের কমিটি বিষয়ে আমার কোন মন্তব্য নেই।

গত ১১ মার্চ জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্তি ঘোষনার পর হঠাৎ করে ছাত্রলীগের পাল্টাপাল্টি কমিটি দাবী করায় ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Copyright © notunalonews24.com All rights reserved. | Newsphere by AF themes.