বুধ. সেপ্টে ২৩, ২০২০

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে তিন বিভাগীয় শহরে সমাবেশ করবে বিএনপি

১ min read

নতুন আলো অনলাইন ডেস্ক ::বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা কারাবন্দি চিকিৎসাধীন বিএনপির  চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিভাগীর শহরে সমাবেশের করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। এর অংশ হিসেবে আগামী ১৮ জুলাই বরিশাল, ২০ জুলাই চট্টগ্রাম ও ২৫ জুলাই খুলনা সমাবেশ করবে দলটি। শনিবার (১৩ জুলাই) সন্ধ্যায় গুলশানে বিএনপির চেয়ারপার্সনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সমাবেশের এসব তারিখ ঘোষণা করেন।

এরআগে, বিকেল ৫ টা থেকে সন্ধ্যা সোয়া ৭টা পর্যন্ত বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় । বৈঠক লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান স্কাইপে যুক্ত ছিলেন। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘৩০ জুলাইয়ের মধ্যে বাকি বিভাগীয় শহগুলোর সমাবেশের তারিখ ঠিক করা হবে।

দেশে নারী ও শিশু ধর্ষণ, হত্যা বেড়েই চলেছে বলে বলে দাবি করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘জানুয়ারি থেকে জুন মাস পর্যন্ত ২ হাজার ৮৩ জন নারী ও শিশু সহিংসতার শিকার হয়েছেন। সম্প্রতি দেশে শিশু ও নারী নির্যাতন আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে চলেছে। যা সমাজে ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করেছে। এ বিষয়ে আগামীতে দলের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করে একটি পরিসংখ্যান তুলে ধরাসহ কর্মসুচি দেওয়া হবে।

রোহিঙ্গা ইস্যুটি দেশের অর্থনীতি, স্বাধীনতার ওপর বড় রকমের চাপ সৃষ্টি করেছে দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এক্ষেত্রে সরকার পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। তারা রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধান করতে পারেনি। রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে সরকার কোনও উদ্যোগ নিতে পারছে না।’রোহিঙ্গা বিষয় আগামীতে সেমিনারের মাধ্যমে কূটনীতিকদের ব্রিফিং করা হবে বলেও জানান মির্জা ফখরুল।

সারাদেশে বন্যাকবলিত অঞ্চলের মানুষদের পাশে দাঁড়াতে নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সম্প্রতি বৃষ্টির পানি ও ভারত থেকে আসা পানির কারণে অনেক এলাকায় ব্যানার সৃষ্টি হয়েছে। বিএনপির কেন্দ্রীয় ত্রাণ কমিটির মাধ্যমে সারাদেশে বন্যাকবলিত এলাকায় ত্রাণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সরকারের আর্থিক ব্যবস্থাপনা চরমভাবে ভেঙে পড়েছে। বিশেষ করে ব্যাংকিং সিস্টেমটা একেবারে ভেঙে পড়েছে। তিনদিন আগে পিপলস লিজিং ফাইন্যান্স কোম্পানিটিকে আমানতকারীদের ২৩৬ কোটি টাকা ফেরত না দিয়েই বাংলাদেশ ব্যাংক প্রতিষ্ঠানটিকে অবসান করেছে। সেটা নজিরবিহীন ঘটনা। এর ফলে প্রতিষ্ঠানটির কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী ও আমানতকারীরা চরম অনিশ্চয়তা মধ্যে পড়েছেন।

পূঁজিবাজারের আমানতকারীসহ ব্যাংকিং ব্যবস্থার বেহাল অবস্থার বিষয়ে ভবিষ্যতে দলীয় কর্মসূচি দেওয়া হবে বলে জানান বিএনপি মহাসচিব।

স্থায়ী কমিটির বৈঠক উপস্থিত ছিলেন ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও সেলিম রহমান।

 

Copyright © notunalonews24.com All rights reserved. | Newsphere by AF themes.