মঙ্গল. সেপ্টে ২২, ২০২০

কুমিল্লা সিটি নির্বাচন প্রচারণার মাঠে দুই দলের কেন্দ্রীয় নেতারা

১ min read

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন (কুসিক) নির্বাচনের আর মাত্র ৭ দিন বাকি। ভোটের দিন যতোই এগিয়ে আসছে কুসিক নগরীতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোট এবং বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের উপস্থিতি ততই বাড়ছে। আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা এবং বিএনপির মেয়র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কুকে বিজয়ী করতে উভয় জোটের কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতাকর্মীরা প্রচারণায় মাঠ সরগরম করে যাচ্ছেন। মাইকিং, গণসংযোগ, পথসভা, উঠান বৈঠক ও ঘরোয়া বৈঠকের মাধ্যমে ভোটারদের মন জয়ের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে উভয় জোট। গণসংযোগের পাশাপাশি উভয় জোটই ভোটের মাঠে নানা মেরুকরণ করার পাশাপাশি কৌশল নির্ধারণে ব্যস্ত রয়েছেন।
জানা যায়, কুসিকের দ্বিতীয় নির্বাচনে দলের মনোনীত প্রার্থীকে বিজয়ী করতে উভয় জোটই কঠোর অবস্থানে রয়েছে। আওয়ামী লীগের আঞ্জুম সুলতানা সীমাকে বিজয়ী করতে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এরই মধ্যেই কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পরিকল্পনা মন্ত্রী আ.হ.ম মুস্তফা কামাল এবং সাধারণ সম্পাদক ও রেলপথ মন্ত্রী মজিবুল হকসহ দলের আরও একাধিক মন্ত্রী প্রচারণায় অংশ নিতে না পারলেও কৌশল নির্ধারণে কাজ করে যাচ্ছেন। কুসিক নির্বাচনে ১৪ দলের সমন্বয়ক  ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ ও সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী এনামুল হক শামীম কুমিল্লায় অবস্থান করে নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডে গঠিত কমিটির কার্যক্রম সমন্বয় করছেন। অপর দিকে বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার নির্দেশে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান ও ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদের নেতৃত্বে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল সাক্কুর পক্ষে মাঠে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।
বুধবার দিনভর আওয়ামী লীগ-বিএনপি প্রার্থী ও দু’দলের কেন্দ্রীয় নেতারা নিজ নিজ দলীয় প্রার্থীর পক্ষে নগরীর বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগ করেছেন। আওয়ামী লীগ প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা নগরীর কচুয়া, রাজাপাড়া, ঢুলিপাড়া, চৌয়ারা, এলাকায় গণসংযোগ করেছেন। এ সময় তিনি বেশ কিছু উঠান বৈঠকসহ পথসভায় বক্তব্য দেন এবং নিজ ঘোষিত নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী কুমিল্লা নগরী গড়ে তোলার জন্য ভোটারদের কাছে ভোট চান। তার পক্ষে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ, সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামিম, নগরীর কান্দিরপাড় এলাকায় এবং কেন্দ্রীয় সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি এ্যাড. মোল্লা মো: আবু কাউছার নগরীর বাদুরতলা, ঝাউতলা ও ধর্মপুর এলাকায় গণসংযোগ করেছেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন, কেন্দ্রীয় সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা, মতিউর রহমান মতি, তানভীর শাকিল জয়, কাজী শহিদুল্লাহ লিটন, আব্দুল আলীম, শেখ সোহেল রানা টিপু, সালেহ মোহাম্মদ টুটুল, হুমায়ুন কবির, সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম আবুল।
এদিকে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু পক্ষে নগরীর টমছমব্রিজ, আশ্রাফপুর, ইপিজেড গ্টে, শাকতলা, উনাইসার এলাকায় গণসংযোগ করেন ২০ দলের সমন্বয়ক ও এলডিপি’র মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গনি, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এনডিপি) চেয়ারম্যান খোন্দকার গোলাম মোর্তজা। সাক্কু প্রচারণা চালান কাশারীপট্রি, চকবাজার, থিরাপুকুরপাড় ও বজ্রপুরে। এছাড়া বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক মন্ত্রী রুহুল কুদ্দুছ তালুকদার দুলু, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা জয়নাল আবদীন ফারুক, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, ইমরান সালেহ প্রিন্স, শামছুজ্জামান দিদার, যুবদলের সাবেক শিল্পবিষয়ক সম্পাদক ব্যবসায়ী গোলাম কিবরীয়াসহ দলের অংগ সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতারা নগরীর মোগলটুলী, কান্দিরপাড়, বাদুরতলা, রেইসকোর্স, চকবাজার, টমছমব্রীজ এলাকায় গণসংযোগ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Copyright © notunalonews24.com All rights reserved. | Newsphere by AF themes.