সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০

বাড়ির বাগানে হেঁটে দু’কোটি পাউন্ড চাঁদা তুলেছেন শতবর্ষী সাবেক ব্রিটিশ সৈনিক

১ min read

নতুন আলো অনলাইন ডেস্ক রিপোর্ট:জনসেবায় দানের সংস্কৃতি ব্রিটেনে বহুদিনের। অনেক স্বল্প আয়ের মানুষও নিয়মিত জনসেবার জন্য পকেট থেকে পয়সা বের করে দেন।

তবে দানের একটি ঘটনা নিয়ে ব্রিটেনে বিস্ময় তৈরি হয়েছে।

ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর একজন সাবেক অফিসার তার শততম জন্মদিনের আগে নিজের বাড়ির সামনের বাগানে ১০০ ল্যাপ হেঁটে জাতীয় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের (এনএইচএস) জন্য কিছু চাঁদা তোলার পরিকল্পনা করেন।

ক্যান্সারে ভোগার সময় এনএইচএসের ডাক্তার- নার্সরা তাকে যেভাবে সেবা করেছে, তার কিছু প্রতিদান দিতে চেয়েছিলেন তিনি।

তার টার্গেট ছিল হাজার খানেক পাউন্ড, কিন্তু গতকাল (শুক্রবার) পর্যন্ত চাঁদার পরিমাণ দাঁড়ায় ২কোটি ১০ লাখ পাউন্ডেও বেশি (দুই কোটি ৬৩লাখ ডলার)।

যেখানে তিনি ভেবেছিলেন চাঁদা আসবে পরিচিত-পরিজন, স্বজন, প্রতিবেশীদের কাছ থেকে, সেখানে অনলাইনে খোলা তার জাস্ট-গিভিং পেজে শুক্রবার পর্যন্ত পাঁচ লাখের মত মানুষ চাঁদা দিয়েছেন।

সাধারণ মানুষের এই বদান্যতায় অভিভূত হয়ে পড়েছেন শতবর্ষী সাবেক এই সৈনিক, যাকে এখন লাঠিতে ভর করে বা অন্যের সাহায্য নিয়ে হাঁটতে হয়।

“আমি বাকরুদ্ধ”, সাংবাদিকদের কাছে অনুভূতি প্রকাশ করতে বলেন আবেগ-আপ্লুত ক্যাপ্টেন টম মূর, যিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ব্রিটেনের হয়ে যুদ্ধ করেছেন।

ক্যাপ্টেন মূর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ভারত ও মিয়ানমার ফ্রন্টে যুদ্ধ করেছেন।ক্যাপ্টেন মূর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ভারত ও মিয়ানমার ফ্রন্টে যুদ্ধ করেছেন।

এ-লিস্ট সেলেব্রিটি

অল্প কিছুদিন আগেও যে বৃদ্ধ সাবেক এই সৈনিককে কেউ চিনতই না, রাতারাতি তিনি এখন ব্রিটেনে ‘এ-লিস্ট’ সেলেব্রিটি। দেশি-বিদেশী মিডিয়া সাক্ষাৎকারের জন্য তার পিছনে ছুটছে।

গতকাল (শুক্রবার) এক টুইট বার্তায় ক্যাপ্টেন মূর বলেন, তিনি আজ কম হাঁটবেন, কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র, আর্জেন্টিনা, ইউরোপ এবং মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলকে সাক্ষাৎকার দেবেন।

বৃহস্পতিবার তিনি ৩৫টি সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। শুক্রবার দিয়েছেন ১৭টি।

লাখ লাখ মানুষ সোশ্যাল মিডিয়ায় শতবর্ষী এই মানুষটির ভূয়সী প্রশংসা করছেন। তাকে ‘নাইট’ উপাধি দেওয়ার দাবি উঠেছে।

যুবরাজ উইলিয়াম তার প্রশংসা করতে গিয়ে তাকে “ওয়ান-ম্যান ফান্ডরেইজিং মেশিন” বলে খেতাব দিয়েছেন। যুবরাজ এবং তার স্ত্রী কেট ক্যাপ্টেন মূরের তহবিলে চাঁদাও দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, সাবেক এই সৈনিককে কীভাবে সম্মানিত করা যায়, তার উপায় খুঁজছেন তিনি।

ক্যাপ্টেন মূরের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন এনএইচএসের একদল ডাক্তার ও নার্স

ইংল্যান্ডের বেডফোর্ডশায়ার জেলার মার্সটন এলাকার এই বাসিন্দা ৩০শে এপ্রিল তার শততম জন্মদিন উদযাপন করবেন।

সন্দেহ নেই, এবারের জন্মদিনই হবে তার শ্রেষ্ঠতম। সুত্র বিবিসি বাংলা :

Copyright © notunalonews24.com All rights reserved. | Newsphere by AF themes.