ডিসেম্বর ৫, ২০২০

অসামাজিকতার বিরুদ্ধে জগন্নাথপুর পৌর এলাকার কেশবপুরের জনগন ফুসে উঠেছে

১ min read

নতুন আলো  নিজস্ব প্রতিনিধি :অসামাজিকতার বিরুদ্ধে জগন্নাথপুর পৌর এলাকার কেশবপুর
গ্রামসহ আশ-পাশ এলাকা উত্তাল হয়ে উঠেছে। বইছে প্রতিবাদের ঝড়। ফুসে উঠেছেন সর্বস্তরের জনতা। আন্দোলনে আন্দোলনে উত্তাল হয়ে উঠেছে জগন্নাথপুরের কেশবপুর গ্রাম।
যে কোন সময় বড় ধরণের সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী। স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানাগেছে, কেশবপুর গ্রামে একটি চিহিৃত অপরাধী চক্র দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় সন্ত্রাসী, অসামাজিকতা, মদ, গাঁজা সেবন ও বিক্রি সহ বিভিন্ন অপরাধ
মূলক কর্মকা- করছে। এছাড়া এলাকার নিরীহ লোকজনকে ভয়ভীতি দেখিয়ে বিভিন্ন অজুহাতে চাঁদা আদায় করে থাকে। তাদের যন্ত্রনায় গ্রামবাসী অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন।
নিরীহ গ্রামবাসী অপরাধী চক্রকে থামাতে এলাকায়
একাধিক সভা ও সভা থেকে তাদেরকে সামাজিকভাবে বয়কটসহ বিভিন্ন উদ্যোগ নিলেও কাজ হয়নি। বরং পেশি শক্তির ক্ষমতা বলে অপরাধী চক্রের লোকজন আরো বেপরোয়া
হয়ে উঠে। তাছাড়া স্থানীয় কেশবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠনে সরকারের অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নানের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে যাওয়ায় অপরাধী চক্রের বিরুদ্ধে স্থানীয় জনতা আরোক্ষেপে উঠেন। এ ব্যাপারে গত ১১ জুন স্থানীয় কেশবপুর গ্রামের মৃত রশিদউল্লার ছেলে আছকির মিয়া, আছর মিয়া, পুলিস মিয়ার ছেলে জাহাঙ্গীর মিয়া, আলমগীর মিয়া, আছর মিয়ার ছেলে বাবুল মিয়া, আফজল মিয়া, মৃত ছামির উদ্দিনের ছেলে সালাহ উদ্দিন মিঠু, জবর আলীর ছেলে শিশু মিয়া, তোতা মিয়া,
জালু মিয়ার ছেলে আনহার মিয়া, জনিক মিয়ার ছেলে টুনু মিয়া, ও মৃত ইছাক উল্লার ছেলে নছর মিয়া সহ এলাকার চিহিৃত অপরাধী চক্রের বিরুদ্ধে স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর তাজিবুর রহমানসহ গ্রামবাসী স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ জগন্নাথপুর থানার ওসি বরাবরে দায়ের করা হয়। যার অনুলিপি
প্রেরণ করা হয়, পুলিশের সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি,
সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক, সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার,সহকারী পুলিশ সুপার সার্কেল, জগন্নাথপুর উপজেলা চেয়ারম্যান, জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র ও বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকবৃন্দকে।
এদিকে-গ্রামবাসী কর্তৃক ধারাবাহিক আন্দোলন ও
প্রতিবাদের মুখে এখনো অপরাধী চক্রের বিরুদ্ধে কোন প্রকার ব্যবস্থা না নেয়ায় বর্তমানে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন সময় বড় ধরণের সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।
বুধবার বিকেলে জগন্নাথপুর থানার এসআই সাইফুল আলমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অপরাধী চক্রের পক্ষে অবস্থান নিয়ে কথা বলায় ক্ষেপে উঠেন প্রতিবাদী জনতা। এ সময় শতশত প্রতিবাদী জনতার তোপের মুখে পুলিশ নিরপেক্ষ ভূমিকা রেখে ফিরে আসে। তবে কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেস্থানীয় পৌর কাউন্সিলর তাজিবুর রহমান বলেন, এলাকার চিহিৃত অপরাধী চক্রের বিরুদ্ধে এলাকাবাসী ফুসে উঠেছেন।
তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়া হলে যে কোন সময় বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ ব্যাপারে অভিযুক্তদের পক্ষে আছকির মিয়া বলেন, প্রকৃত পক্ষে কেশবপুর সরকারি প্রাথমিক
বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি গঠন নিয়ে গ্রামের একটি পক্ষের সাথে আমাদের বিরোধ সৃষ্টি হয়। যে কারণে তারা বিভিন্ন দপ্তরে আমাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছে। বিষয়টি ঈদের পর নিস্পত্তি হওয়ার কথা রয়েছে।
এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর থানার ওসি হারুনুর রশীদ চৌধুরী বলেন, এখানে দুইটি পক্ষ রয়েছে। তবে তদন্তক্রমে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Copyright © notunalonews24.com All rights reserved. | Newsphere by AF themes.