জুন ২৪, ২০২১

জগন্নাথপুরে শ্রীধর পাশায় সংঘর্ষের ঘটনায় জামিন পেয়েও একপক্ষের মধ্যে আতংক বিরাজ করছে

অতিথি প্রতিনিধি:

সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলি ইউনিয়নের শ্রীধরপাশা গ্রামের জাবেদ আলম কোরেশী লোকদের সাথে একই গ্রামের আব্দুল মালিক পক্ষের লোকজনের মধ্যে চলমান মামলায় উভয় পক্ষের কিছু  লোক জামিন হয়েছে।

জানা যায়, শ্রীধরপাশা গ্রামে শ্রীধরপাশা কওমি মাদ্রাসার জমি নিলামের পর একই এলাকার জাবেদ আলম কোরেশী ও আব্দুল মালিক লোকজনের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধ হয়। এতে গুলিবিদ্ধসহ প্রায় ৬০ জন আহত হন এবং নুর আলী নামের হান্নান পক্ষের একব্যাক্তি চিকিৎসাধীন অবস্থায় নিহত হন। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের দুটি মামলায় ১১৮ জনকে আসামী করা হয়। উভয় পক্ষের ৮২ জন আদালত থেকে জামিন নেন।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাদিক ব্যক্তি জানান, আমরা জাবেদ আলম কোরেশী লোক হওয়ায় গ্রামে স্বাভাবিক ভাবে চলাচল করতে পারছিনা এমনকি রাস্তা ঘাটে চলাচল করলে আমাদের নিয়ে নানান ধরনের অকৈট্য ভাষায় মন্তব্য করে।ছেলে মেয়ে স্কুলে যাতায়াত কালে বিভিন্ন ধরনের গালাগালি করে। বর্তমান সময়ে আমরা অসহায় হয়ে গেছি।আব্দুল মালিক পক্ষের লোকজন আরো হিংস্র হয়ে উঠেছে।

লোকজনের সাথে আলাপ করে জানা যায়, গুলিবৃদ্ধ আহত নুর আলীর মৃত্যু নিয়ে এলাকায় নানা প্রশ্ন জন্ম দিয়েছে।বর্তমানে এ মৃত্যু রহস্য জনক ও তাদের পরিবারকে নিশ্চিন্ন করতে আব্দুল মালিক পক্ষ চিকিৎসার অবহেলায় নুর আলীর মৃত্যু হয়েছে বলেও প্রশ্ন তুলেছেন। বর্তমানে পুরো ঘটনাটি রাজনৈতিক ভাবে ভিন্ন খ্যাতে প্রভাবিত করছে বলে দাবি করছে কোরেশী পরিবার।সংঘর্ষের পর আব্দুল মালিকের লোকজন মাদ্রাসা ও মসজিদের ফটক থেকে দাতা পরিবারের সদস্যের নাম কালোরঙ দিয়ে মুছে ফেলা হয়।

এদিকে আব্দুল মালিক পক্ষের লোকজনের সাথে যোগাযোগ করা হলে প্রতিনিধিকে জানান, কোরেশীর পরিবারের লোকজনের কথা ভিত্তিহীন।আমাদের জানামতে এরকম কোন কিছু আমরা করি নাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Copyright © notunalonews24.com All rights reserved. | Newsphere by AF themes.