সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০

বর্বরতম বি ডি আর হত্যাযঙ্ঘ প্রসঙ্গ ।

১ min read

বর্বরতম বি ডি আর হত্যাযঙ্ঘ প্রসঙ্গ ।
———————-
২০০৯ সালের ২৫/২৬ শে ফেব্রোয়ারী রাতে সংগঠিত হয়েছিল সামরিক ইতিহাসের এক বর্বরতম হত্যাযঙ্ঘ । আমি তখন বাংলাদেশে ছিলাম, আম্বর খামার হাউস ইন ইস্ট্যেটে থাকতাম । ২৫ শে ফেব্রোয়ারী সকাল ৯টার দিকে আমার জীপের ড্রাইভার আসলে জরুরী এক কাজে উপশহরের এ বি ব্যাঙ্কে যাওয়ার জন্য রওয়ানা দিয়ে আম্বর খানা মেইন পয়েন্টে পৌঁছা মাত্র মিলীটারির লোক গান উচুঁ করে বিনা শব্দে ফিরে যেতে বল্ল । কোন কিছু বুঝার আগে বাসায় ফিরে আসলাম । ধারণা করতে পারলাম যে দেশে মারাত্বক একটা কিছু হয়তো ঘটে গেছে । উৎকন্ঠায় সময় যাচ্ছিল না , রেডিও ও টিভিতে কোন খবর নাই এমন কি কোন সংবাদ পত্র ও ঐদিন ছাপা হয়নি । মধ্যাহ্ন, একটার দিকে খবর আসে যে ইতিহাসের বর্বরতম হত্যাযঙ্ঘ ঘটে গেছে পিলখানার বি ডি আর হেডকোয়ার্টারে । বি ডি আর প্রধান সহ ৫৭ জন চৌকস আরমী অফিসারকে হত্যা করেছে । কিলিং কোয়াডে যারা ছিল এদের বিদেশী বলে দেখাযাচ্ছিল । আর নিহত সব অফিসাররা ছিলেন আগ্রাসী ভারত বিরুধী । আগ্রাসী ভারত বাংলাদেশে তাদের অতি আপনজন শেখ হাসিনার মাধ্যমে বাংলাদেশ সেনা বাহিনীর কমর ভেঙ্গে দেওয়ার জন্য ঐ হত্যাযঙ্ঘ ঘটিয়েছিল । প্রথম ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ও কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে ৫৭ জন অফিসার প্রাণ হারাননি ? ২৫শে ফেব্রোয়ারীতে কেন বাংলাদেশ সেনা বাহিনী এ্যাকশনে গেল না , এ্যাকশনের ওয়ার্ডার কেন দেওয়া হল না , সেনা প্রধান ও প্রধান মন্ত্রীর কি ভুমিকা ছিল সে সময় , স্বরাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী খুনিদের আমার ছেলের সমতুল্য বলে সম্বোধন করার রহস্যই বা কি
সেনা সদরে প্রধান মন্ত্রী কেন প্রশ্নবানে জর্জরিত হয়েছিলেন এসব ব্যাপারে নিশ্চয় ই একদিন সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে স্বঠিক রহস্য উদ্ঘাটন করে প্রকৃত খুনিদের ও নেপথ্যে থাকা বড় খুনিদের বিচারের সম্মূখিন করে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির ব্যবস্হা বাংলাদেশের দেশপ্রেমিক মানুষ করবে ইনশা’আল্লাহু তায়া’লা । বি ডি আর এর সকল বিদেহী অফিসারদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে সে দিনের অপেক্ষায় রইলাম যেদিন বাংলাদেশের মাটিতে সকল খুনের ও গুমের বিচার হবে সুষ্ঠভাবে । লেখক মোহাম্মদ গুলফর আহমদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Copyright © notunalonews24.com All rights reserved. | Newsphere by AF themes.