ডিসেম্বর ৪, ২০২০

ম্যানচেষ্টারে শাহিদা শাহিদের মৃত্যু দুর্ভাগ্যজনক :

নতুন আলো নিউজ ডেস্ক : রেস্টুরেন্টের ভেতরে স্টাফদের মধ্যে যথাযথ যোগাযোগের অভাবেই বার্গার খাওয়ার পর এলার্জিক রিয়েককশনে ম্যানচেস্টারের তরুনী শাহিদা শাহিদের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে জুড়িবোর্ড।

ম্যানচেস্টারের সলফোর্ড এলাকার ওর্সলির বাসিন্দা শাহিদা শাহিদ। তার বয়স ১৮ বছর। সে ম্যানচেস্টার ইউনিভার্সিটির ছাত্রী ছিল।

২০১৫ সালের ৯ জানুয়ারী বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে ম্যানচেস্টারের মোটামুটি বিখ্যাত একটি বার্গারের দোকানে বার্গার খাওয়ার প্রায় তিন দিন পর হাসপাতালে ব্রেইন ডেমেজ হয়ে মারা যায় শাহিদা। বাটার মিল্কের বার্গার খাওয়ার পর এলার্জিক রিয়্যাকশন হলে সাথে সাথে তার বন্ধু তাকে ইনজেকশনও দেয়। এরপর হাসপাতালে নেওয়া হয়।

ম্যানচেস্টার করোনার কোর্টে শুনানি শেষে তার মৃত্যুর কারন সম্পর্কে চুড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছে জুড়িবোর্ড। তার মৃত্যুকে দুর্ভোগ্যজনক উল্লেখ করে শুনানিতে বলা হয়েছে, রেস্টুরেন্টের ভেতরে তাকে যিনি সার্ভ করেছেন সেই ব্যক্তি এবং শেফের মধ্যে কমিউনিকেশন গ্যাপ হওয়ার ফলে শাহিদার জীবনকে মৃত্যুর মুখে টেলে দেওয়া হয়েছে।

শাহিদা যে বার্গারটি খেয়েছিলেন সেই বার্গার যে মিল্কবাটার দিয়ে ম্যারিনেইট করা সেটা ম্যান্যুতে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা ছিল না। তবে কোন কাস্টমারের যদি এলার্জিক সমস্যা থাকে তাহলে স্টাফের সঙ্গে শেয়ার করতে সব কাস্টমারকে আহ্বান করা হয়েছে। সে হিসেবে শাহিদা সেটা করেছেন বলেও রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়। তবে যে কাগজে শাহিদার এলার্জিক সমস্যার কথা স্টাফ লিখে নিয়ে গিয়েছিলেন সেই কাগজ কিচেনে বার্গার তৈরি এবং বার্গার ডেলিভারি দেওয়ার সময় পর্যন্ত কয়েকবার হারিয়েছে বলে শুনানিতে জানানো হয়।

তবে করোনার কোর্টে রায় শুনে তার ভাই রাসেল শাহিদ জানিয়েছেন, শাহিদা জানত সে কিভাবে তার নিজেকে নিরাপদ রাখতে হবে। কোন জায়গায় কি খেতে হবে সে ব্যাপারেও সে ছিল সচেতন। কোন জায়গার খাবার তার জন্যে নিরাপদ মনে না হলে সে সেখানে খেতই না বলেও জানান তার ভাই।

উল্লেখ, শুনানিতে আরে জানানো হয়েছে, এর আগেও দুবার দুধ জাতীয় খাবার খেয়ে শাহিদার এলার্জিক সমস্যা হয়েছে। সর্বশেষ তার ১৬তম জন্মদিনেও তার সমস্যা হয়েছিল ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Copyright © notunalonews24.com All rights reserved. | Newsphere by AF themes.