1. bnp786@gmail.com : editor :
  2. sylwebbd@gmail.com : mit :
  3. nurulalamneti@gmail.com : Nurul Alam : Nurul Alam
  4. mrafiquealien@gmail.com : Rafique Ali : Rafique Ali
  5. sharuarprees@gmail.com : Sharuar : Mdg Sharuar
  6. Mahareza2015@gmail.com : Muhibur reza Tunu : Muhibur reza Tunu
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৯:৫৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আতিকুর রহমান টিটুকে গ্রেফতারে সিলেট জেলা যুবদলের নিন্দা সিলেটে বাসদের উদ্যোগে করোনা টিকার ফ্রি নিবন্ধন কার্যক্রমের উদ্বোধন তুরন মিয়ার বোনের মৃত্যুতে যুক্তরাজ্য বিএনপির শোক প্রকাশ। করোনায় আক্রান্ত সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত   জঃপুর উঃ আন্তর্জাতিক গীতিকবি সাংস্কৃতিক পরিষদ এর ভার্চুয়াল আলোচনা অনুষ্ঠিত। জগন্নাথপুর উপজেলা,পৌর ও কলেজ ছাত্রদলের ঈদ পূর্ণমিলনী ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত। ৪৮ ঘন্টার ভিতরে কোরবানীর বর্জ পরিস্কারের ঘোষনা,কথা রাখলেন মেয়র আরিফ সিলেটে করোনায় মৃত্যুের সংখ্যা দাঁড়ালো ৬০৬ জনে ছাতকে নামাজি শিশু-কিশোরদের বাই সাইকেল উপহার দিলো পাইগাঁও যুব সমাজ যুক্তরাজ্য স্বেচ্ছাসেবক দলের সাঃ সম্পাদক আবুল হোসেন এর পিতার মৃত্যুতে আবুল কালাম আজাদ এর শোক প্রকাশ।

ফেইসবুকে আ. লীগ নেতার বিরুদ্ধে স্ট্যাটাস দেয়ায় খুন

  • আপডেটের সময় : শনিবার, ৭ এপ্রিল, ২০১৮

চট্টগ্রামে মহিউদ্দিন হত্যায় ৩জনের স্বীকারোক্তি

নতুন আলো নিউজ ডেস্ক :আওয়ামী লীগ নেতা হাজী ইকবালের বিরোধিতা করে ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ার জেরে যুবলীগ কর্মী মহিউদ্দিন মহিদ খুন হন বলে আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে জানিয়েছেন গ্রেফতার তিন আসামী। মহিউদ্দিন খুনের দায় স্বীকার করে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন তারা। আসামীরা হলেন, যুবলীগ কর্মী ও ইকবালের অনুসারী হারুনুর রশিদ, বখতেয়ার আলম প্রিন্স ও সাগর। মহানগর হাকিম আলম ইমরান খানের আদালতে এ তিন আসামি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন বলে জানান আদালত পুলিশের সহকারী কমিশনার কাজী শাহাবুদ্দিন।
জবানবন্দির বরাত দিয়ে পুলিশ জানায় তারা জবানবন্দিতে খুনের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার এবং ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন। মূলত হাজী ইকবালকে নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়া, এলাকার কর্তৃত্ব নিয়ে বিরোধ এবং এলাকায় তার বিরোধিতা করায় খুনের ঘটনা ঘটেছে। কারণ হাজী ইকবালের কর্তৃত্ব মানতেন না মহিউদ্দিন। একসময় মহিউদ্দিন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা হাজী ইকবালের সঙ্গে কাজ করতেন। পরবর্তীতে বিরোধের জেরে তাদের মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টি হয়। এর জের ধরে গত ২৬ মার্চ মেহের আফজল বিদ্যালয়ের পুর্নমিলনী উপলক্ষে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কক্ষে এক সভায় কুপিয়ে হত্যা করা হয় মহিউদ্দিনকে।
হত্যাকান্ডের পর মহিউদ্দিনের মা হাজী ইকবালসহ ১৭ জনকে আসামি করে বন্দর থানায় একটি মামলা করেন। এ পর্যন্ত আটজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে প্রধান অভিযুক্ত হাজী ইকবালের ছেলে আলী আকবর ও জিসানকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বন্দর জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার কামরুল হাসান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরণের আরো খবর
© All rights reserved © 2021 notunalonews24.com
Design and developed By Md.Rafique Ali