মঙ্গল. সেপ্টে ২২, ২০২০

রাহুলের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে বড় ধরনের সংশয় কংগ্রেসে

১ min read

কদিন আগেও ব্যাপক আত্মবিশ্বাস দেখিয়েছিলেন ভারতের কংগ্রেসের সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধী। বিহারের উদাহরণ টেনে বলেছিলেন, সব বুথ ফেরত জরিপের ফল ভুল প্রমাণিত হবে। কিন্তু পরদিন শনিবার উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেস সহ-সভাপতির আত্মবিশ্বাস মুখ থুবড়ে পড়ল। কারণ সব হিসাব উল্টে দিয়ে উত্তরপ্রদেশে ৩২৫টি আসন পেয়ে একক সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হয়েছে বিজেপি। সংবাদসূত্র : এবিপি নিউজ
ভারতের সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, এই প্রথম বড় কোনো নির্বাচনে রাহুল গান্ধী একা কংগ্রেসকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। এর আগে কংগ্রেস মূলত সোনিয়া গান্ধীর নেতৃত্বেই লড়েছে। অসুস্থ সোনিয়া দলের শীর্ষ পদ থেকে অব্যাহতি নিতে চাইছেন অনেক দিন ধরেই। রাহুলের ওপর দায়িত্ব দিতে চাইছেন। কিন্তু রাহুল এখনই সভাপতিত্বে নিজের উত্থান চাইছেন না। সম্প্রতি কংগ্রেস শিবিরে জল্পনা শুরু হয়েছিল, পাঁচটি রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন শেষ হলেই সোনিয়া আনুষ্ঠানিকভাবে সরে দাঁড়াবেন। রাহুল সহ-সভাপতি থেকে সভাপতি হবেন। উত্তরপ্রদেশ, উত্তরাখ-, পাঞ্জাব, গোয়া এবং মনিপুরের নির্বাচনে রাহুল গান্ধীকে সামনে রেখেই লড়াইয়ে নেমেছিল কংগ্রেস, তারই জেরে এই জল্পনা জোর পেয়েছিল।

উত্তরপ্রদেশে সমাজবাদী পাটির (সাপা) সঙ্গে কংগ্রেসের নির্বাচনী সমঝোতার লক্ষ্যে রাহুলই প্রথম সক্রিয় হন। তিনিই ছিলেন ওই রাজ্যে কংগ্রেসের প্রচারের প্রধান মুখ। শেষ পর্যন্ত প্রচারে নামেননি প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। তার গতিবিধি মূলত কংগ্রেসের নীতিনির্ধারণী পর্যায় এবং আমেথি-রায়বেরেলির মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল, উত্তরপ্রদেশে বিজেপির বিজয়রথ থামিয়ে দেয়ার প্রশ্নে যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী কংগ্রেস এবং সেই সাফল্যকে রাহুল গান্ধীর সাফল্য হিসেবে ব্যাখ্যা করে দলের সভাপতি পদে তার উত্থানের মঞ্চ তৈরি করা হবে।
পাঞ্জাবে কংগ্রেসে হাওয়া যে জোরালো, তা আগেই বোঝা গিয়েছিল। উত্তরাখ-েও ফের জয়ের স্বপ্ন দেখছিলেন রাহুল। দুই ছোট রাজ্য গোয়া আর মনিপুর নিয়েও কংগ্রেস আশাবাদী ছিল। রাহুলের নেতৃত্বে লড়াই করে উত্তরপ্রদেশের পাশাপাশি এই রাজ্যগুলোতেও যদি কমবেশি সাফল্য মিলে যায়, তা হলে মহিমান্বিত ভাবমূর্তি নিয়ে তিনি কংগ্রেসের সভাপতি পদে বসতে পারবেন, এমনই আলোচনা চলছিল দলের মধ্যে।
কিন্তু ভোট গণনার পর দেখা গেল, কংগ্রেস তথা রাহুল গান্ধীর সব হিসাব ওলট-পালট হয়ে গেছে। উত্তরপ্রদেশে শুধু পরাজয় নয়, শোচনীয় ভরাডুবি হয়েছে সপা-কংগ্রেস জোটের। উত্তরাখ-েও অপ্রত্যাশিত ধাক্কা। শুধু হার নয়, সেই রাজ্যে বিজেপির চেয়েও অনেক পিছিয়ে পড়েছে কংগ্রেস। মনিপুরেও বিজেপিরও উত্থান ঘটেছে। তার তুলনায় গোয়ায় কংগ্রেসের সাফল্য প্রত্যাশার চেয়ে কিছু বেশি। কিন্তু ক্ষুদ্রতম রাজ্য গোয়ায় কংগ্রেসের সাফল্য কতটা, তা জাতীয় রাজনীতিতে খুব প্রভাব ফেলবে না বলে মত বিশ্লেষকদের। পাঞ্জাবে কংগ্রেস নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে। কিন্তু উত্তরপ্রদেশ এবং পাশের উত্তরাখ-ে যে ভয়াবহ ধাক্কা কংগ্রেস খেল, সেই ক্ষত শুধু পাঞ্জাবকে দিয়ে সারানো সম্ভব নয় বলেই ভারতের রাজনৈতিক মহল মনে করছে।
রাহুল গান্ধী নিজে সামনে দাঁড়িয়ে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন এই পাঁচ রাজ্যের ভোটে। সাফল্য এলে রাহুলের নামেই জয়ধ্বনি শুরু হতো। যার প্রস্তুতিও শুরু হয়েছিল দিলি্লর ২৪, আকবর রোডে। কিন্তু উত্তরপ্রদেশের শোচনীয় পরাজয়ে সেই আয়োজন শনিবার সকালেই থেমে গেছে। আর এর মধ্যদিয়ে রাহুলের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়েও এখন বড় ধরনের সংশয় তৈরি হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Copyright © notunalonews24.com All rights reserved. | Newsphere by AF themes.