বৃহঃ. সেপ্টে ২৪, ২০২০

মৌলভীবাজার ১ আসন আওয়ামীলীগ ও বিএনপিতে একাধিক প্রার্থী

১ min read

মনসুর আহমেদ বড়লেখা প্রতিনিধি: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে এই আসনের সকল সম্ভাব্য প্রার্থী ও ভোটারদের মাঝে আলোচনার কমতি নেই। মৌলভীবাজার ১ আসন বড়লেখা ও জুড়ী উপজেলা নিয়ে গঠিত।আওয়ামীলীগ প্রকাশ্যে এবং বিএনপি অপ্রকাশ্যে বড় দুই দলের চলছে আসন জিতার প্রস্তুতি।২০ দলীয় জোট চায় এই আসনটি অতীতের মতো আবারো পুনরুদ্ধার। আর ১৪ দলীয় জোট চায় তাদের অতীথের মতো জয়ের ধারা বজায় রাখতে।জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে ইতিমধ্যে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হয়ে গেছে তাদের সাংগঠনিক ভাবে,দলীয় কুণ্ডল এবং গ্রুপিং পিছিয়ে বিএনপি। বর্তমানে তৃণমূলের কাছ থেকে যানা গেছে হামলা মামলার ভয়ে এবং একক প্রার্থী না থাকায় তারা এখনো প্রকাশ্যে প্রচারণা থেকে অনেকটা বিরত রয়েছেন।
বড়লেখায় ১টি পৌরসভা, ১০টি ইউনিয়ন ও জুড়ী উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন নিয়ে মৌলভীবাজার ১আসন, ২০০৮ সালের সাংসদ নির্বাচনের পর থেকে এই আসনটিত দখলে রয়েছে আওয়ামীলীগের। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শাহাব উদ্দিন এমপি বর্তমানে জাতীয় সংসদের হুইপের দায়িত্ব পালন করছেন। এনিয়ে তিনি তিনবার এমপি নির্বাচিত হয়েছেন এ আসন থেকে।একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আসনটি রক্ষা ও পুনরুদ্ধারের লড়াই বেশ তুমুল লড়াই জমে উঠবে সাধারণ জনগণের ধারনা। বিএনপি ২০দলীয় জোট ২০০৮ সালের নির্বাচনে হাতছাড়া হওয়া আসনটি পুনরুদ্ধারে প্রাণপণ চেষ্টা চালাবে।এ আসনটিতে দলীয় মনোনয়ন পেতে বিভিন্ন দলের প্রার্থীরা এখন থেকেই নিজ দলের তৃণমূল থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত তারা সবাই জোর লবিংয়ে ব্যস্ত। আলোচনায় উঠে আসছে বিগত দিনের বিজয়ী প্রার্থীদের উন্নয়ন ও জনপ্রিয়তার এবং অবহেলার অনেক বিষয়গুলো। ১৯৯১ সালের নির্বাচনে এ আসনে জয়ী হন জাতীয় পার্টির প্রার্থী এবাদুর রহমান চৌধুরী।
১৯৯৬ সালের ১২ই জুন অনুষ্ঠিত নির্বাচনে জয়ী হন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. শাহাবউদ্দিন। ২০০১ সালের নির্বাচনে জয়ী হন বিএনপির এবাদুর রহমান চৌধুরী।
২০০৮ সালের নির্বাচনে জয়ী হন আওয়ামী লীগের মো. শাহাবউদ্দিন। ২০১৪ সালের নির্বাচনেও তিনি এমপি নির্বাচিত হন।
এই আসনে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসাবে রয়েছেন- আওয়ামী লীগের বড়লেখা উপজেলা সভাপতি ও বর্তমান এমপি হুইপ মো. শাহাব উদ্দিন, বড়লেখা উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সুন্দর। বিএনপি থেকে সাবেক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট এবাদুর রহমান চৌধুরী, মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও বিশিষ্ট শিল্পপতি নাসির উদ্দিন আহমেদ মিঠু,কাতার বিএনপি সদস্য সচিব ও ল যুবদলের সাবেক সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শরীফুল হক সাজু। জামায়াতে ইসলামী থেকে আমিনুল ইসলাম। জাতীয় পার্টি থেকে রয়েছেন কেন্দ্রীয় সদস্য আহমদ রিয়াজ।জোটবদ্ধ নির্বাচন হলে আসনটি রক্ষা ও পুনরুদ্ধার নিয়ে ভোটের লড়াই বেশ জমে উঠবে বলে ধারণা তৃণমূলের নেতাকর্মী ও ভোটারদের।
মনোনয়ন পাওয়া না পাওয়ার বিষয় নিয়ে জানতে চাইলে এই আসনের সবচেয়ে আলোচিত সমালোচিত ব্যক্তি কাতার বিএনপির সদস্য সচিব শরীফুল হক সাজু নতুনআলোনিউজ২৪.কমকে জানান,মৌলভীবাজার-১ আসনে একাধিকবার সংসদসদস্য নির্বাচিত হয়েছেন নন্দিত জননেতা এবাদুর রহমান চৌধুরী। বর্তমানে তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ। আমি ব্যক্তিগত ভাবে এই নির্বাচনে ছাত্রদলের পক্ষ থেকে প্রশংসনিয় বেক্তিকে ধানের শীষের প্রতীকে প্রার্থী হতে আগ্রহী। এরপরও দল যদি তৃণমূলের অন্য কাউকে মনোনয়ন দেয়, আমি তার পক্ষে কাজ করে যাব। আমি চাই, এই আসনের প্রার্থী বাছাইয়ে যেন তৃণমূলের মতামতকে গুরুত্ব দেওয়া হয় এবং প্রার্থী যেন অবশ্যই জাতীয়তাবাদী আদর্শ ও জিয়ার পরিবারের প্রতি আনুগত্যশীল হন। তিনি আরো বলেন টাকার জোরে মনোনয়ন কিনে বাইরে থেকে কেউ এসে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করলে দলের জন্য নিবেদিতপ্রাণ কর্মী হিসেবে আমি এবং আমরা সহকর্মীরা কষ্ট পাবে এবং এতে দলের ইমেজ সংকট তৈরি হবে।­

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Copyright © notunalonews24.com All rights reserved. | Newsphere by AF themes.