বৃহঃ. সেপ্টে ২৪, ২০২০

তাহিরপুরে ১০০ বস্তা চাল পাচারের সময় গ্রেফতার ২

তাহিরপুর উপজেলার সরকারি খাদ্য গুদাম হতে কালো বাজারে চাল বিক্রির অভিযোগে ভারপ্রাপ্ত খাদ্য গোদাম কর্মকর্তা গোলাম আউলিয়া, রাইস মিল মালিক আলী হায়দার ও চাল ব্যবসায়ী শফি আলমের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা রুজ্জু করার নির্দেশ দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। মঙ্গলবার রাতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্টেট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সাইফুল ইসলাম এই আদেশ দেন। পুলিশ রাইস মিল মালিক আলী হায়দার ও চাল ব্যবসায়ী শফি আলমকে গ্রেফতার করেছে। অপর আসামী ভারপ্রাপ্ত খাদ্য গোদাম কর্মকর্তা গোলাম আউলিয়াকে গ্রেফতারের জন্য সংশ্লিøষ্ট কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা চেয়ে পত্র পাঠানো হয়েছে।
তাহিরপুর থানা পুলিশসহ সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার সকাল ৮ টায় তাহিরপুর উপজেলা খাদ্য গুদাম হতে সুলেমানপুর বাজারে নিয়ে যাওয়ার পথে খাদ্য গোদামের কাজে নিয়োজিত দু’টি ইঞ্জিন চালিত ট্রলিতে থাকা বস্তাতে ‘গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার’ লিখা ৫০ কেজি ওজনের ১শ বস্তা চাল জব্দ করে তাহিরপুর থানা পুলিশ। জব্দকৃত ১০০ বস্তা চাল তাহিরপুর উপজেলা খাদ্য গোদাম থেকে পাচার করা হয়েছে বলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাহিরপুর থানার   
এসআই রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সুলেমানপুর নদীর ঘাটে গিয়ে জব্দ করে। এই চালের মধ্যে ১৮ বস্তা চাল বিশ্বম্ভরপুর খাদ্য গোদামের ছিল বলেও জানা গেছে। 
পরে জব্দকৃত ঐ ১শ বস্তা চাল নিজেদের হেফাজতে এনে বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করেন থানার ওসি। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাত ৯ টা থেকে সাড়ে ১০ টা পর্যন্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসে। 
ভ্রাম্যমাণ আদালত ধর্মপাশা উপজেলার হাদিপুর গ্রামের বাসিন্দা তাহিরপুরের ওসিএলএসডি গোলাম আউলিয়া, তাহিরপুর সদর ইউনিয়নের রতনশ্রী গ্রামের চাল ব্যবসায়ী শফি আলম এবং ট্রলি চালক হরমুজ আলী ও জাহাঙ্গীর মিয়ার জবানবন্দি গ্রহণ করেন। সবার জবানবন্দিতে ওই চালগুলো পাচারের উদ্দেশ্যে পাঠানো হচ্ছিল বলে প্রমাণিত হওয়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্টেট ও তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম উপজেলা ভারপ্রাপ্ত খাদ্য গোদাম কর্মকর্তা গোলাম আওলিয়া, চাল ব্যবসায়ী শফি আলম ও তাহিরপুর সদর ইউনিয়নের জয়নগর গ্রামের মিল মালিক আলী হায়দারের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা রুজ্জু করার নির্দেশ দেন। পুলিশ তাৎক্ষণিক মিল মালিক আলী হায়দার ও চাল ব্যবসায়ী শফি আলমকে গ্রেফতার করে। 
তাহিরপুর থানার ওসি নন্দন কান্তি ধর জানান এ ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বাদী হয়ে নিয়মিত মামলা দায়ের করেছেন। ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক সাবেরা আক্তার বলেন, ‘সরকারি খাদ্য গোদামের কাজে নিয়োজিত দুটি ট্রলিতে করে ৫০ কেজির ১০০ বস্তা চাল পাচারের সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জব্দ করা হয়। চালের বস্তার গায়ে সরকারি সিল রয়েছে। ঐ চালের বস্তার মধ্যে বিশ্বম্ভরপুর খাদ্য গোদামের ১৮’এর অধিক বস্তা চাল ছিল। চাল জব্দের সময় ঘটনাস্থল থেকেই জড়িত একজন ব্যবসায়ীকে এবং পরে আরেকজন ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়। প্রাথমিক তদন্তে নির্বাহী ম্যাজিষ্টেট জানতে পেরেছেন এই চাল পাচারের সঙ্গে ওসিএলএসডিও জড়িত রয়েছেন। তাৎক্ষণিক বিষয়টি ওসিএলএসডি অস্বীকার করায় তাকে গ্রেপ্তার করা যায়নি। এ ঘটনায় ওসিএলএসডিসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দায়েরের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Copyright © notunalonews24.com All rights reserved. | Newsphere by AF themes.