1. bnp786@gmail.com : editor :
  2. sylwebbd@gmail.com : mit :
  3. nurulalamneti@gmail.com : Nurul Alam : Nurul Alam
  4. mrafiquealien@gmail.com : Rafique Ali : Rafique Ali
  5. sharuarprees@gmail.com : Sharuar : Mdg Sharuar
  6. Mahareza2015@gmail.com : Muhibur reza Tunu : Muhibur reza Tunu
সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১১:৪৬ অপরাহ্ন
Title :
জগন্নাথপুর উপজেলা,পৌর ও কলেজ ছাত্রদলের ঈদ পূর্ণমিলনী ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত। ৪৮ ঘন্টার ভিতরে কোরবানীর বর্জ পরিস্কারের ঘোষনা,কথা রাখলেন মেয়র আরিফ সিলেটে করোনায় মৃত্যুের সংখ্যা দাঁড়ালো ৬০৬ জনে ছাতকে নামাজি শিশু-কিশোরদের বাই সাইকেল উপহার দিলো পাইগাঁও যুব সমাজ যুক্তরাজ্য স্বেচ্ছাসেবক দলের সাঃ সম্পাদক আবুল হোসেন এর পিতার মৃত্যুতে আবুল কালাম আজাদ এর শোক প্রকাশ। দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া অনুসন্ধান কল্যান সোসাইটি সিলেট এর উদ্যেগে ঈদের উপহার বিতরন আবুল হোসেন এর পিতার মৃত্যুতে মির্জা ফখরুল ইসলামের শোক প্রকাশ যুক্তরাজ্য স্বেচ্ছাসেবক দলের সাঃ সম্পাদক আবুল হোসেন এর পিতার মৃত্যুতে যুক্তরাজ্য স্বেচ্ছাসেবক দলের শোক প্রকাশ আবুল হোসেন এর পিতার মৃত্যুতে যুক্তরাজ্য বিএনপি’র শোক প্রকাশ।

সুনামগঞ্জে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ

  • আপডেটের সময় : শনিবার, ২৩ জুন, ২০১৮

মুহিবুর রেজা তালুকদার টুনু জগন্নাথপুর থেকে::জেলা প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চলতি দায়িত্ব জৈষ্ঠতার ভিত্তিতে প্রধান শিক্ষক হিসেবে পদায়নের নামে চলছে রমরমা বাণিজ্য। জেলার ১১ টি উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫০৩ জন শিক্ষক তাদের সুবিধাজনক ও পছন্দের স্কুলে প্রধান শিক্ষক হিসেবে পদায়নের জন্য বিভিন্ন কৌশলে তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন। শিক্ষকদের এ দুর্বলতার সুযোগে অভিনব কৌশলে প্রায় কোটি হাতিয়ে নেয়ার ফন্দি আটছেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার পঞ্চাননবালা দাস ও সহকারি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাজ্জাদ ।

এ দুই সরকারি কর্মকর্তা একশ্রেনীর শিক্ষকনেতা ও অসাধু শিক্ষা কর্মকর্তাদের মাধ্যমে শিক্ষদের পছন্দের স্কুলে পদায়নের জন্য জনপ্রতি ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা করে আদায় করছেন। অপরদিকে অনিয়মের দায় এড়াতে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও গুরুত্বপুর্ন ব্যাক্তিদের প্যাডে সুপারিশের তালিকায় নাম লিখিয়ে নিতে নির্দেশনা দিচ্ছেন। এভাবেই চলছে চলতি দায়িত্ব পদায়ন বাণিজ্য।

প্রতিবেদকের সাথে মোবাইল ফোনে আলাপকালে তাহিরপুর উপজেলার এক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক জানান, বর্তমান ডিপিও স্যার পদায়নের নামে টাকা নিচ্ছেন। আমি ১০ হাজার টাকা দিয়েছি। জানিনা হবে কিনা। উনি টাকা ছাড়া কিছু বুঝেনা। কখনো নিজ হাতে নেন আবার কখনো অনুগত লোকদের দিয়ে টাকা আদায় করছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষক জানান, আমরা কয়েকজন ২০ হাজার টাকা করে দিয়ে পছন্দের স্কুলে পদায়নের ব্যবস্থা করেছি। আশা করা যায় হয়ে যাবে।

এছাড়া একাধিক শিক্ষকদের সাথে পদায়ন নিয়ে আলাপ করলে তারা সবাই জানান, পদায়ন বাণিজ্য চলছে। ডিপিও টাকা ছাড়া কিছু বুঝেনা। আমরা চাই সুষ্ঠভাবে পদায়ন হোক। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার পঞ্চাননবালা জানান, আমি নতুন এসেছি। সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী পদায়ন হবে। প্রত্যেক শিক্ষককে নীতিমালা অনুযায়ী পার্শ্ববর্তী স্কুলে পদায়ন করা হবে। কোন অনিয়ম হচ্ছেনা। কোন শিক্ষকনেতা বা অসাধু কোন কর্মকর্তা অনিয়ম করে থাকলে সেটা আমার জানা নেই। তবে এম. পি, আওয়ামীলীগের সভাপতি বা সেক্রেটারীসহ বিভিন্নমহলের সুপারিশের তালিকা আসছে, আমরা সেটা বিবেচনা করব।

সহকারি শিক্ষা অফিসার সাজ্জাদ জানান, আমি চট্রগ্রামে ট্রেনিং এ আছি। পরে আরেকটি ট্রেনিং এ যাব। অনিয়মের সাথে আমি জড়িত নই। উল্লেখ্য গত ১৯ জুন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়-২ শাখার উপ-সচিব মনোয়ারা ইশরাত এ প্রজ্ঞাপন জারি করেন। প্রজ্ঞাপনে জৈষ্ঠতার ভিত্তিতে সুবিধাজনক স্থানে প্রধান শিক্ষকের শুন্য পদে সহকারি শিক্ষকদের পদায়নের কথা বলা হয়েছে। এ প্রজ্ঞাপনের আলোকে সুনামগঞ্জের ৫০৩ জন শিক্ষক সুবিধাজনক স্থানে পদায়ন হবেন।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরণের আরো খবর
© All rights reserved © 2021 notunalonews24.com
Theme Customized By BreakingNews